• জানুয়ারি ২৭, ২০২০
  • Last Update জানুয়ারি ১৬, ২০২০ ১২:২৭ অপরাহ্ণ
  • বাংলাদেশ

বরিশালে পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর সংখ্যা শুণ্যের কোঠায় আনতে মেয়রের উদ্যোগ

বরিশালে পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর সংখ্যা শুণ্যের কোঠায় আনতে মেয়রের উদ্যোগ

বরিশালে পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর সংখ্যা শুণ্যের কোঠায় আনতে মেয়রের উদ্যোগ

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল :- “আমরাই গড়বো আগামীর বরিশাল” সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহর এ শ্লোগানকে সামনে রেখে নগরীতে দ্বিতীয়বারের মতো চারটি স্কুলের পুকুরে চার থেকে ১৪ বছরের সাঁতার না জানা শিশুদের প্রশিক্ষণের উদ্বোধণ করা হয়েছে।
“সাতার জানি-সুরক্ষায় আমি” এ প্রতিপাদ্যকে ধারণ করে বুধবার বেলা ১১টায় নগরীর ভাটিখানা এলাকার শহীদ সুকান্ত বাবু সেরনিয়াবাত শিশু পার্ক সংলগ্ন পুকুরে সাঁতার প্রশিক্ষণের উদ্বোধণ করেন সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ। এসময় মেয়র বলেন-শিক্ষার পাশাপাশি শিশুদের পানি থেকে জীবন রক্ষার জন্য প্রতিটি অভিভাবকদের সচেতন হতে হবে। বরিশাল পানির দেশ এখানকার শিশুরা সাঁতার জানবে না, তা হতে পারেনা। বরিশাল নগরীকে শিশু বান্ধব শহর গড়ার লক্ষ্যে কাজ চলছে। প্রত্যেক অভিভাবকদের সহযোগিতায় নদী মাতৃক শহর বরিশালের প্রতিটি শিশু যেন সাঁতার শিখতে পারে সেজন্যই সাঁতার প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে।
সেভ দি কেস্ট্যালের পরিচালনায়, বিসিসি’র সার্বিক সহযোগিতা, সিআইপিআরবি’র কারিগরি সহযোগিতা ও ইউনিসেফের আর্থিক সহযোগিতায় শিশুদের জীবন সুরক্ষায় সাঁতার প্রশিক্ষনের উদ্বোধণী অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপিস্থিত ছিলেন ইউনিসেফ বরিশালের বিভাগীয় প্রধান এইচএম তৌফিক আহমেদ, সিআইপিআরবি কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর হোসাইন, স্কোপের নির্বাহী পরিচালক কাজী এনায়েত হোসেন শিপলু, বিসিসি’র চিকিৎসক খন্দকার মঞ্জুরুল ইমাম, ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল ইসলাম বাদশা, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মহিবুল ইসলাম প্রমুখ।
বক্তারা বলেন-প্রতিবছর সারাদেশে পানিতে ডুবে ১৮ হাজার শিশুর প্রানহানি ঘটছে। এমধ্যে বরিশালে প্রায় সাড়ে তিন হাজার শিশুর মুত্যু ঘটছে। যা গড়ে প্রতিদিন নয়জন শিশু পানিতে ডুবে মৃত্যুবরন করছে। ফলে শিশুদের পানিতে পরে মৃত্যুর সংখ্যা শুণ্যের কোঠায় নিয়ে আসার জন্য বিসিসি’র মেয়রের সহযোগিতায় নগরীর শহীদ সুকান্ত বাবু সেরনিয়াবাত শিশু পার্ক সংলগ্ন টিবি হাসপাতালের পুকুর, পরেশ সাগরের পুকুর, ব্যাপ্টিষ্ট মিশন বালিকা বিদ্যালয় ও অক্সেফোর্ড মিশন প্রাইমারী বিদ্যালয় সংলগ্ন পুকুরে চার থেকে ১৪ বছরের এক হাজার ৮০জন শিশুর সাঁতার প্রশিক্ষণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। প্রতিব্যাচে পাঁচজন শিশুকে একজন প্রশিক্ষকের মাধ্যমে ৩০ মিনিট সাঁতার প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। এজন্য প্রতি শিশুর জন্য পুকুরে বাঁশের মাঁচা কৃত্রিম সুইমিং পুল, শিশুদের জন্য টি শার্ট ও মেয়েদের জন্য পছন্দ অনুসারে হালকা পোষাক দেওয়া হয়েছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *