• নভেম্বর ২১, ২০১৯
  • Last Update নভেম্বর ২১, ২০১৯ ১:৩৫ অপরাহ্ণ
  • বাংলাদেশ

প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণ অতঃপর ৪ মাসের অন্ত:সত্ত্বা

প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণ অতঃপর ৪ মাসের অন্ত:সত্ত্বা

উজিরপুর প্রতিনিধিঃ বরিশালের উজিরপুরে সাবেক সেনা সদস্য ও পল্লী চিকিৎসক চিকিৎসার নামে অচেতন করে প্রবাসীর স্ত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণ করে ৪ মাসের অন্ত:সত্ত্বা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয় সুত্রে জানা যায় উপজেলার দঃ সাতলা গ্রামের আমজেদ মিঞার ছেলে সাবেক সেনা সদস্য ও পল্লি চিকিৎসক মিজানুর রহমান মিঞা(৪৫) এর নয়াকান্দি বাজারে জান্নাত মেডিকেল হলে ৬ মাস পূর্বে চিকিৎসা নিতে যায় একই এলাকার সৌদি প্রবাসী মিন্টু ফকিরের স্ত্রী ৪ সন্তানের জননী(৩২)। সেখানে লম্পট চিকিৎসক ৪ সন্তানের জনক মিজানুর রহমান ঘুমের ঔষধ মিশিয়ে ইনজেকশন দিয়ে অচেতন করে গৃহবধুকে ধর্ষণ করে এবং মোবাইল ফোনে নগ্ন ভিডিও ধারণ করে জিম্মি করে ৬ মাস ধরে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে একাধিকবার ঐ গৃহবধুকে ধর্ষণ করেছে। এতে গৃহবধু ৪ মাসের অন্ত:সত্ত্বা হয়ে পড়ে। বিষয়টি গৃহবধু লম্পট মিজানকে জানালে বহুবার গর্ভপাত ঘটানোর চেষ্টা করে অবশেষে ২৯ জুন পুনরায় মিজান গৃহবধুকে নিয়ে গৈলা হাসপাতালে গর্ভপাত ঘটানোর জন্য ভর্তি করে। কিন্তু কর্তব্যরত ডাঃ অস্বীকৃতি জানালে সেখান থেকে উভয়ই পালিয়ে যায়। বর্তমানে লোক চক্ষুর ভয়ে গৃহবধুকে অন্যত্র নিয়ে আত্মগোপন করে রাখে লম্পট মিজান। এ বিষয়ে গৃহবধুর দেবর রাকিব ও শাশুড়ী জহুরা বেগম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে সাংবাদিকদের কাছে লিখিত ভাবে অভিযোগ দিয়ে জানান ঐ লম্পট মিজান আমাদের পরিবারের সর্বনাশ করেছে। গৃহবধু বর্তমানে ৪ মাসের অন্ত:সত্ত্বা হয়ে পড়েছে। প্রথমে তার ভয়ে মুখ খুলতে সাহস পাইনি। এখন প্রয়োজনে থানায় মামলা করব। আমরা লম্পট মিজানের বিচার চাই। জানা যায় লম্পট মিজান প্রবাসী মিন্টু ফকিরের আপন খালাত ভাই। এ ছাড়াও তার বিরুদ্ধে এলাকায় একাধিক ব্যাক্তি অভিযোগ করে বলেন তিনি ইতিপূর্বে ডাকাতি করতে গিয়ে ধরা পড়লে আলমগীর বখতিয়ারকে হত্যার উদ্দেশ্যে কুপিয়ে যখম করে এবং প্রতিবন্ধী নান্টু বালিসহ একাধিক পরিবারের উপর হামলা চালায়। ঐ লম্পটের বিচারের দাবী জানিয়ে পুলিশের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করেন নির্যাতিতা পরিবার ও এলাকাবাসী। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মিজানুর রহমানের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান। উজিরপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ শিশির কুমার পাল জানান, অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *