• অক্টোবর ২৪, ২০১৯
  • Last Update অক্টোবর ২৩, ২০১৯ ১০:৫৮ অপরাহ্ণ
  • বাংলাদেশ

বরিশালে হাতুরে চিকিৎসকরা দিচ্ছে স্পর্শকাতর রোগের চিকিৎসা

বরিশালে হাতুরে চিকিৎসকরা দিচ্ছে স্পর্শকাতর রোগের চিকিৎসা

বরিশালে হাতুরে চিকিৎসকরা দিচ্ছে স্পর্শকাতর রোগের চিকিৎসা

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল ॥ জেলার বিভিন্ন উপজেলার সাধারণ রোগীদের জিম্মি করে স্পর্শকাতর রোগের চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছেন হাতুরে চিকিৎসকরা। গ্রাম্য চিকিৎসকদের কাছ থেকে চিকিৎসা নিয়ে নিজেদের অজান্তেই আরও কঠিন রোগে আক্রান্ত হয়ে পরছেন সাধারণ রোগীরা। সহজ সরল গ্রামবাসীর সাথে দীর্ঘদিন থেকে প্রকাশ্যে এসব প্রতারনা করে আসলেও বিষয়টি দেখার যেন কেউ নেই।
সরেজমিনে দেখা গেছে, উজিরপুর উপজেলার শিকারপুর বন্দরের গ্রাম্য চিকিৎসক সঞ্জয় কুমার রায় শিকারপুর বন্দরে নিজের নামের নিচে মেডিসিন, মহিলা ও শিশুরোগে অভিজ্ঞ, কোমর ও ঘারের ব্যাথা, প্যারালাইসিস, নাক, কান, গলা, চর্ম ও অর্শরোগের মত স্পর্শকাতর রোগের কথা লিখে তার চিকিৎসা দিয়ে আসছেন। এমনকি নিজেই ডায়গনষ্টিক সেন্টার খুলে ইচ্ছেমত টেস্ট বাণিজ্যের মাধ্যমে গ্রামের সাধারণ রোগীদের সাথে প্রতারনা করে হাতিয়ে নিচ্ছেন মোটা অংকের টাকা।

শিকারপুর বন্দরের একাধিক ব্যবসায়ীরা জানান, সঞ্জয় কুমার রায় একজন গ্রাম্য চিকিৎসক হয়েও স্পর্শকাতর রোগের চিকিৎসা দেয়াসহ সাধারণ রোগীদের বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষার মাধ্যমে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। এ বিষয়ে গ্রাম্য চিকিৎসক সঞ্জয় কুমার রায়ের কাছে জানতে চাইলে, তিনি ক্ষুব্ধ হয়ে সংবাদকর্মীদের বলেন, সিভিল সার্জন অফিসের অনুমতি নিয়েই আমি এখানে ডাক্তারী করি। আপনাদের কাছে আমি কোনো কিছু বলতে বাধ্য নই। আপনারা সিভিল সার্জনকে গিয়ে বলেন, যা বলার আমি তার কাছে বলবো।
উজিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা একেএম শামছুদ্দিন বলেন, দীর্ঘবছর রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিয়ে আজও আমি নিজেকে অভিজ্ঞ বলতে পারছিনা। সেখানে গ্রাম্য চিকিৎসক হয়ে কিভাবে সঞ্জয় কুমার রায় বিভিন্ন রোগের অভিজ্ঞ হলো তা আমার জানা নেই। তিনি আরও বলেন, উজিরপুর উপজেলায় অপচিকিৎসা ঠেকাতে খুব শীঘ্রই আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অপরদিকে জেলার গৌরনদী উপজেলার চাঁদশী গ্রামে রনজিৎ রায় নামের এক ব্যক্তি হোমিওপ্যাথিতে প্রশিক্ষণ নিয়ে অশর্^ রোগ, ব্রেষ্ট টিউমার, জরায়ু টিউমারসহ বিভিন্ন চিকিৎসার নামে সাধারণ রোগীদের অপচিকিৎসা দিয়ে গ্রামের সহজ সরল রোগীদের সাথে প্রতারনা করে আসছেন। এ ব্যাপারে জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ মনোয়ার হোসেন জানান, গ্রাম্য চিকিৎসকদের চিকিৎসা ও ব্যবস্থাপত্র দেওয়ার কোন সুযোগ নেই। তারা শুধু রোগীদের পরামর্শ দিতে পারবেন। এর বাইরে যদি কোনো পল্লী চিকিৎসক রোগীদের সাথে প্রতারণা করে থাকে সেটা তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *