• জুন ২, ২০২০
  • Last Update জুন ১, ২০২০ ৯:৩৩ অপরাহ্ণ
  • বাংলাদেশ

আপনি জানেন কি এই নয়টি খাবারের উৎপত্তি মেডিকেল ব্যাকগ্রাউন্ড থেকে?

আপনি জানেন কি এই নয়টি খাবারের উৎপত্তি মেডিকেল ব্যাকগ্রাউন্ড থেকে?

জানাঅজানা

আপনি জানেন কি এই নয়টি খাবারের উৎপত্তি মেডিকেল ব্যাকগ্রাউন্ড থেকে?

সুপার শপে গেলে বা বাড়ির পাশের দোকানে সহজলভ্য কিছু পণ্য আছে যার উৎপত্তি মূলত মেডিকেল ব্যাকগ্রাউন্ড থেকে। হয়তো শুরুতে একদম ভিন্ন রকম বা ভিন্ন কাজে ব্যবহৃত হতো, ভিন্ন উপাদানও থাকতো, তবে বিবর্তনের ধারা মেনে এগুলো হয়ে গেছে আমাদের নিত্য দিনের সঙ্গী। চলুন জেনে নিই তেমনই কিছু পণ্যের গল্প।

. গ্রাহাম ক্র্যাকার্স

প্রেজবাইটিয়ান মিনিস্টার সিলভেস্টার গ্রাহাম সর্বপ্রথম গ্রাহাম ক্র্যাকার্স তৈরী করেন। মূলত তার ডায়েটের জন্য এই ক্র্যাকার্স তৈরী করতেন তিনি। ভেজেটারিয়ানিজমের সমর্থক গ্রাহাম সুস্যাস্থ্যের জন্য এই ক্র্যাকার্স তৈরী করে খেতেন। পরে জনপ্রিয়তা পেলে বাণিজ্যিকিকরণ ঘটে তার এই ক্র্যাকার্সের। অনেক মানুষ এই ক্র্যাকার্স পছন্দ করলেও ১৮৫১ সালে তার মৃত্যুর পর এই ক্র্যাকার্সের জনপ্রিয়তা কমে যায়।

. কর্ণ ফ্লেক্স

গ্রাহামের স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের অনুসারী দুই ভাই ড. জন হার্ভে কিলগ এবং উইল কেইথ কিলগ ভুল করে আবিষ্কার করে ফেলেন কর্ণ ফ্লেক্স, আর পরে বাণিজ্যিকিকরণ ঘটান। বাজারে প্রথম কর্ণ ফ্লেক্স বিক্রি হতো “কিলগ’স কর্ণ ফ্লেক্স” নামে এবং তা বাণিজ্যিকভাবে বাজারে নিয়ে আসতো গ্রাহামের স্বাস্থ্যকর খাদ্যের অংশ হিসেবে। প্রথম দিকে দাবি করা হতো এটি ডাইসপেপসিয়া এবং অনৈতিক আক্রমণাত্বক ব্যবহার কমানোর জন্য খাওয়ানো উচিত।

. সালিসবারি স্টেক

আমেরিকার সিভিল ওয়ারের (গৃহযুদ্ধের) সময় ডাক্তার হিসেবে কাজ করা জেমস সালিসবারি ডায়রিয়া আক্রান্ত সৈনিকদের বিফ স্টেক ও কফির সংমিশ্রণে বিশেষ খাবার খেতে দিতেন যাতে দ্রুত সুস্থ হয়ে ওঠে তারা। পরে এটি বেশ জনপ্রিয়তা পায়। তিনি সবাইকে বলতেন দিনে ৩ বেলা সালিসবারি স্টেক খেলে অনেক রোগ থেকে মুক্ত থাকা যায়।

. কোকাকোলা

আমরা যে কোকাকোলা পানীয় খাই এটি আসলে ক্যাফেইন ও কোকেইনের সমন্বয়ে তৈরী হয়ে প্রথম সিরাপ হিসেবে বাজারজাত হয়েছিলো। আমেরিকাতে নন-অ্যালোহলিক ড্রিংক হিসেবে এটি মানুষজন পছন্দ করতে শুরু করে। এটির আবিষ্কারক পেমবার্টন ১৮৮৮ সালে মৃত্যুবরণ করলে এর জনপ্রিয়তা খুব বেড়ে যায়। মাথাব্যাথা থেকে মুক্তির জন্য প্রথম দিককার কোকাকোলা ব্যবহৃত হতো।

. সেভেন আপ

মানসিক অবস্থা নিয়ন্ত্রণের জন্য মুড স্টাবলাইজার হিসেবে সাইক্রিয়াটিস্টরা ১৯২৯ সালে সেভেন আপ খেতে দিতেন। তখন এর নাম ছিরৌ “বিব-লাবের লিথিয়াটেড লেমন-লাইম সোডা”। ১৯৫০ সাল থেকে বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদন শুরু হয়।

. ডক্টর পিপার

টেক্সাসের ফার্মাসিস্ট চার্লস আলডেনটন সর্বপ্রথম ড. পিপার বানান, যা ওই এলাকায় জনপ্রিয়তা লাভ করে। প্রথমে ওয়াকো নামে পরিচিত থাকলেও পরে এই ডিংকের নাম ড. পিপার হিসেবে পরিবর্তিত হয়।

. গুগু ক্লাস্টার

শ্রমিকদের এনার্জি বাড়ানোর জন্য ১৯২০-১৯৩০ সালের দিকে ‘গু-গু ক্যান্ডি বার’ ব্যবহৃত হতো। এতে থাকতো উচ্চ মাত্রার ক্যালরী।

. ফিগ নিউটনস

ডাইজেশনের সমসার জন্য বেশির ভাগ রোগ হতো বলে গত শতাব্দিতে ডাক্তাররা বিশ্বাস করতো। তাই ফিগ বা ডুমুরের এই বিস্কিট এক সময় খুব জনপ্রিয়তা পায় সুস্থ থাকার উপার হিসেবে। ১৮৯১ সালে প্রথম ফিগ নিউটনস বাজারজাত করা হয়।

. ডাইজেস্টিভ বিস্কুট

১৮৩৯ সালে দুই স্কটিস ডাক্তার ডাইজেস্টিভ বিস্কুট তৈরী করেন। খাবার পরে এ বিস্কিট খেলে খাবার হজম হয় বলে প্রচারের পর এ বিস্কুট খুব জনপ্রিয়তা পায়।

আপনার মূল্যবান মতামত কমেন্টে জানাতে ভুলবেন না সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ..

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *