• অক্টোবর ৪, ২০২২
  • Last Update অক্টোবর ১, ২০২২ ৭:১০ অপরাহ্ণ
  • বাংলাদেশ

এনজিও কর্মীর সাথে স্ত্রী’র পরকীয়া, অতঃপর স্বামীর হাতে আটক

এনজিও কর্মীর সাথে স্ত্রী’র পরকীয়া, অতঃপর স্বামীর হাতে আটক

এনজিও কর্মীর সাথে নিজের স্ত্রীর পরকীয়ার বিষয় স্বামীর হাতে নাতে ধরা পরলো। ২০ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার রাত ১০ টার দিকে বরিশাল নগরীর কলেজ এভিনিউ জোড়াপুকুর সংলগ্ন একটি ভাড়াটিয়া বাসা থেকে অন্য পুরুষের সাথে স্ত্রীকে পরকীয়া অবস্থায় ধরে পুলিশের হাতে প্রেরণ করেন স্বামী ফাইজুল ইসলাম খলিফা। কোতোয়ালি মডেল থানাকে অবহিত করলে ঘটনা স্থানে থেকে তাদের আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

পরকীয়ায় আসক্ত এনজিও কর্মী সেলিম দেশের সুনামধন্য এনজিও ব্র্যাক এর বানারিপাড়া উপজেলার বিশারকান্দী ইউনিটে কাজ করেন। তিনি ফরিদপুর জেলা কানাইপুরে আঃ গফুরের ছেলে। সেলিম ব্যক্তিগত ভাবে তিনি বিবাহিত এবং  তার দুটি সন্তান রয়েছে। অপরদিকে পরকীয়ায় আসক্ত কেয়া আক্তার গৌরনদী উপজেলার পূর্ব হোসনাবাদ গ্রামের খালেক বেপারীর মেয়ে।

ভুক্তভোগী স্বামী ফাইজুল ইসলাম খলিফা জানান, কেয়ার আক্তার এর সাথে ইসলামি শরীয়া মোতাবেক ১০ জানুয়ারি ২০১৬ সালে বিবাহ হয়। বর্তমানে তাদের ঘরে চার বছরের একটা পুত্র সন্তান রয়েছে। তিনি জানান আমি বিগত ২ বছরের অধিক সময় দেশের বাহিরে ছিলাম। এই সুযোগে তার স্ত্রী ব্র্যাক এর এক এনজিও কর্মী সেলিম নামে তার সাথে সম্পর্ক গড়ে উঠে। পরবর্তীতে পরকীয়ায় জড়িয়ে পরে। আমার সুখের সংসার ধ্বংষ করে দেন। তার পরকীয়া সম্পর্কে বাধা দেওয়ার কারণে যৌতুক মামলা, নারী ও শিশু নির্যাতন ২ টি মামলা করেন। তার অবৈধ ভাবে স্বামী ও স্ত্রী’র পরিচয়ে কলেজ এভিনিউ থাকেন গোপন সুত্রে তথ্য পেয়ে তাদের গতকাল রাতে একই বাসা থেকে আটক করে,  পরে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

তিনি (ফাইজুল ইসলাম) আরো জানান চলতি মাসের ৫ জানুয়ারি স্ত্রীর অত্যাচারের হাত থেকে রক্ষা পেতে গৌরনদী থানায় অভিযোগ দেন।

অভিযান পরিচালনায় দায়িত্বরত পুলিশ পরিদর্শক মাহমুদ হাসান মুমিনুল জানান বরিশাল মেট্রোপলিটন এ্যাক্ট ২০০৯ এর আইন অনুযায়ী তাদের আটক করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করেন, মামলা নং সিআর ১৬/২২।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.