• নভেম্বর ২৯, ২০২২
  • Last Update নভেম্বর ২৫, ২০২২ ৭:৪২ অপরাহ্ণ
  • বাংলাদেশ

ববি’র উপাচার্যসহ শীর্ষ পাঁচ পদ শূন্য* ভেঙে পড়েছে প্রশাসনিক কাঠামো *ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত

ববি’র উপাচার্যসহ শীর্ষ পাঁচ পদ শূন্য* ভেঙে পড়েছে প্রশাসনিক কাঠামো *ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত

উপাচার্য, উপ-উপাচার্য, ট্রেজারার, রেজিস্ট্রার ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের পদ শূন্য থাকায় চরম সংকটের মধ্যে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের প্রথম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির ভর্তি পরীক্ষা সাময়িকভাবে স্থগিত করা হয়েছে। আগামী ১৮ ও ১৯ অক্টোবর ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও গত রবিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের কোর কমিটির সদস্য প্রফেসর ড. মোঃ মুহসিনের স্বাক্ষরিত এক প্রেসবিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে তা সাময়িকভাবে স্থগিতের ঘোষণা করা হয়েছে।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ভর্তি পরীক্ষার পরবর্তী তারিখ বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে জানিয়ে দেওয়া হবে। এছাড়া চলমান এ সংকটের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী মুরশীদ আবেদীনকে তার দাপ্তরিক কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। সূত্রমতে, শিক্ষার্থীদের টানা আন্দোলনের মুখে গত ২৬ মে তৎকালীন উপাচার্য প্রফেসর ড. এসএম ইমামুল হক ছুটিতে যান। এরপর ট্রেজারার একেএম মাহবুব হাসানকে উপাচার্যের দায়িত্ব দেওয়া হয়। গত ৭ অক্টোবর বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য একেএম মাহবুব হাসানের ট্রেজারারের মেয়াদ শেষ হওয়ায় তিনিও বিদায় নিয়েছেন। এতে করে সংকট প্রকট আকার ধারন করে। ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কর্মকান্ড এখন মুখ থুবড়ে পরেছে।

শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা জানান, উপাচার্যসহ অপর গুরুত্বপূর্ণ পদগুলো শূন্য থাকায় যে যার মতো দায়িত্ব পালন করছেন। যে কারণে শিক্ষকদের দলাদলিতে ভেঙে পরেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কাঠামো। দুর্গা পূজার ছুটি কাটিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় খোলার পর সকলেই যেন ভিসি, এমনটাই মনে হচ্ছে কার্যক্রমে। কেউ কাউকে মানছে না এবং কেউ কারোর কথাও শুনছেন না। বন্ধ রয়েছে সিন্ডিকেট, একাডেমিক কাউন্সিল ও ফিন্যান্স কমিটির কার্যক্রম। কোনো গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেয়া যাচ্ছেনা। ফলে ইতোমধ্যে সাময়িকভাবে স্থগিত করা হয়েছে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ভূ-তত্ত¡ ও খনিবিদ্যা বিভাগের চেয়ারম্যান আবু জাফর মিয়া বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিসহ গুরুত্বপূর্ণ পদ শূন্য থাকায় একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম মুখ থুবড়ে পরেছে। এমতাবস্থায় অতিদ্রæত অবিভাবকহীন অবস্থায় থাকা এ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভিসি নিয়োগ দিয়ে সার্বিক অগ্রযাত্রাকে সমুন্নত রাখতে না পারলে পরবর্তীতে তা কাটিয়ে ওঠা কঠিন হবে।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা কমিটি সদস্য প্রফেসর ড. মোঃ মুহসিন উদ্দীন বলেন, নতুন ভিসি নিয়োগ হলে আশা করি সকল সমস্যাগুলো অচিরেই সমাধান হবে। এ অবস্থায় দ্রæত ভিসি নিয়োগের দাবি শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের। তিনি আরও বলেন, যদি দ্রæত ভিসি নিয়োগ দেয়া না হয় তাহলে ক্ষতির আশঙ্কা তৈরি হবে। সৃষ্টি হবে সেশনজট। বন্ধ হয়ে যেতে পারে শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বেতন।

সূত্রমতে, বর্তমানে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা সাত হাজার সাতশ’ জন। আর শিক্ষক ১৮০জন, কর্মকর্তা ও কর্মচারীর সংখ্যা ২১২ জন। বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, চলমান সংকটের মধ্যেই নির্বাহী প্রকৌশলী মুরশীদ আবেদীনের বিরুদ্ধে সরকারী অসঙ্গতিপূর্ণ কাগজপত্রে বিভিন্ন বিল দেওয়ার জন্য অর্থ ও হিসাব দপ্তরের সহকারী পরিচালক আতিকুর রহমানকে বিভিন্নভাবে হুমকি ও অনৈতিক চাপ প্রয়োগ করার অভিযোগ উঠেছে। অতিসম্প্রতি এ অভিযোগ আতিকুর রহমান বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন। ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী মুরশীদ আবেদীনকে তার দাপ্তরিক কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। পরবর্তীতে ঘটনার তদন্তে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ চার সদস্যের একটি কমিটি গঠণ করেন। এ ব্যাপারে নির্বাহী প্রকৌশলী মুরশীদ আবেদীন জানান, তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। যা সঠিক তদন্ত করলে বেরিয়ে আসবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *