• ডিসেম্বর ২, ২০২২
  • Last Update নভেম্বর ২৫, ২০২২ ৬:৫৪ অপরাহ্ণ
  • বাংলাদেশ

গ্রামীণ নারীদের সমস্যা সমাধানের বন্ধু ‘তথ্য আপা’ এখন আগৈলঝাড়ায়

গ্রামীণ নারীদের সমস্যা সমাধানের বন্ধু ‘তথ্য আপা’ এখন আগৈলঝাড়ায়

অপূর্ব লাল সরকার, আগৈলঝাড়া (বরিশাল) : নাম তার মাহাবুবা মাহি, কিন্তু গ্রামের সবাই তাকে এক নামে চেনে ‘তথ্য আপা’ হিসেবে। যেকোন সমস্যায় সকলের ফোন ধরেন, প্রয়োজনে তার বাড়ি গিয়ে পাশে দাঁড়ান তিনি। তাই ধনী-দরিদ্র আর ধর্মের বেড়াজাল ছিড়ে গ্রামের সকলের কাছে এখন এক প্রিয় বিশ্বস্ত মুখ তথ্য আপা। পিছিয়ে পড়া গ্রামীণ নারী সমাজকে সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কর্মকর্তার সাথে সাথে সরাসরি যুক্ত করতে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে জাতীয় মহিলা সংস্থার বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষে তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তির মাধ্যমে মহিলাদের ক্ষমতায়ন (প্রকল্প-২) এর আওতায় হাতে নেয়া হয়েছে ‘তথ্য আপা’ প্রকল্প।

বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলার রাজিহার ইউনিয়নের রামানন্দের আঁক গ্রামের মন্দির আঙ্গিনায় মঙ্গলবার বিকেলে ওই গ্রামের ৫০জন নারীদের নিয়ে এই ‘তথ্য আপা’ প্রকল্পর উদ্ভোধনী উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। ‘তথ্য আপা’ হিসেবে পরিচিত উপজেলা তথ্য ও সেবা কর্মকর্তা মাহাবুবা মাহি’র সভাপতিত্বে পিছিয়ে পড়া নারীদের উদ্বোধনী উঠান বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিপুল চন্দ্র দাস। উপজেলা এনজিও সমন্বয় পরিষদের সাধারণ সম্পাদক কাজল দাশগুপ্তের সঞ্চালনায় উঠান বৈঠকে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদে প্যানেল চেয়ারম্যান মলিনা রানী রায়, আমার বাড়ি আমার খামার প্রকল্প সমন্বয়কারী সুব্রত হালদার। উপস্থিত ছিলেন রামানন্দের আঁক মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শংকর লাল বিশ্বাস, আগৈলঝাড়া প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক তপন বসু, স্থানীয় সমাজ সেবক স্বপন হালদারসহ গ্রামের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।
উঠান বৈঠকে বক্তারা বলেন, আধুনিক তথ্য প্রযুক্তি থেকে পিছিয়ে পড়া নারীদের তথ্য ও যেকোন ধরণের সেবা দিতে সরকারের মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের উদ্যোগে জাতীয় মহিলা সংস্থার বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তির মাধ্যমে মহিলাদের ক্ষমতায়ন (প্রকল্প-২) এর আওতায় ৫৪৪৯০ দশমিক ৭৪ লাখ টাকা ব্যয়ে দেশের ৪৯০টি উপজেলায় ‘তথ্য আপা’ নামের প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এই প্রকল্পের কর্মকর্তা ‘তথ্য আপা’ তথ্য কেন্দ্রে ইন্টারনেটের মাধ্যমে যোগাযোগ, বিশেষজ্ঞের মতামত গ্রহণ, প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবা, সরকারী সেবা সমূহের সহজলভ্যতা নিশ্চিতকরণ, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, আইন, ব্যবসা, জেন্ডার, কৃষি বিষয়ক সেবা, ভিডিও কনফারেন্স, ই-লার্নিং, ই-কমার্সসহ নারীদের যেকোন সমস্যা সমাধানে রয়েছে সদা সচেষ্ট। এক কথায় সরকারের সাথে সেবা গ্রহণকারীদের সেতু বন্ধন হিসেবে কাজ করছেন এই তথ্য আপা প্রকল্পের ‘তথ্য আপা’।
কর্মকর্তারা জানান, উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নেই এই ‘তথ্য আপা’ প্রকল্পর তথ্য আপা কাজ করবেন। নারীরা এই ‘তথ্য আপা’র মাধ্যমে আধুনিক সেবা গ্রহণ করে ডিজিটাল দেশ বিনির্মাণে অগ্রণী ভুমিকা রাখবে বলে আশা ব্যক্ত করেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *